সোনারগাঁয়ে এসেপ্ট কোম্পানীর বিরুদ্ধে জোরপূর্বক কৃষি জমি ভরাটের অভিযোগ

6

সোনারগাঁ বার্তা ২৪ ডটকম: নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের জামপুর ইউনিয়নের বাগবাড়িয়া এলাকায় কৃষি জমির ভরাট করার অভিযোগ উঠেছে একটি ডেভলেপার কোম্পানির বিরুদ্ধে। স্থানীয় কৃষকদের জমি না ক্রয় করেই তারা বালু ভরাট করছে বলে অভিযোগ উঠে। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার (২৫ জুলাই) দুপুরে কৃষকদের পক্ষে গণ স্বাক্ষর নিয়ে বাগবাড়িয়া গ্রামের কৃষক আব্দুল কাদির নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক কার্যালয়, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সোনারগাঁ থানার ওসির কাছে স্বারক লিপি দিয়েছেন।

জানা যায়, উপজেলার জামপুর ইউনিয়নের বাগবাড়িয়া গ্রামের ৯০ভাগ কৃষক তাদের ফসলী জমি থেকে উৎপাদিত ফসলের উপর নির্ভর করে তাদের সংসার পরিচালনা করেন। এ কৃষি জমি স্থানীয় দালালদের মাধ্যমে এসেপট নামের একটি ডেভলেপর কোম্পানি কিছু জমি ক্রয় করে। পরবর্তীতে ভূমিদস্যূ ও দালালদের সাধারণ কৃষকের জমি জোরপূর্বক ভরাট করে নিচ্ছে।

এতে বাধা দিলে কৃষকদের উপর নির্যাতন করে স্থানীয় দালাল চক্র। বালু ভরাটের ফলে ওই এলাকায় প্রায় ৫ শ হেক্টর জমি অনাবাদি হয়ে পড়েছে। এসেপট কোম্পানির পক্ষে জামপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সামসুল আলম, যুবলীগের নামধারী নেতা মনির হোসেন, হাবিবুল্লাহ, আবুল কালাম, আজিজুল ইসলাম, রফিকুল ইসলাম ও মোবারক হোসেন ভয় ভীতি, মিথ্যা চাঁদাবাজির মামলার হুমকি দিয়ে আসছে।

এ কোম্পানির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হামীম শিকদার শিপলুর কাছে শরাপন্ন হয়েও কোন প্রতিকার পায়নি। কৃষকদের জমি ফিরে পেতে বৃহস্পতিবার দুপুরে কৃষকদের পক্ষে বাগবাড়িয়া গ্রামের কৃষক আব্দুল কাদির নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক কার্যালয়, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সোনারগাঁ থানার ওসির কাছে স্বারক লিপি প্রদান করেছেন।

বাগবাড়িয়া গ্রামের কৃষক আমিনুল ইসলাম ও আবুল কালাম অভিযোগ করেন, এসেপট কোম্পানির একটি দালাল চক্রের মাধ্যমে তাদের জমি বালু ভরাট করে হাতিয়ে নিচ্ছে। তাদের জমি উদ্ধারের জন্য স্থানীয়  চেয়ারম্যান হামীম শিকদার শিপলুর কাছে গিয়েও ফল হয়নি। তাদের জমি ফিরে পেতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন কৃষকরা।

বাগবাড়িয়া গ্রামের কৃষক আলী হোসেন জানান, আমরা বাপ দাদার আমল থেকে এ জমিতে আবাদ করে সংসার চালিয়ে আসছি। হঠ্যাৎ করে এসেপট নামের একটি কোম্পানি এসে কয়েকজন কৃষকের কাছ থেকে জমি ক্রয় করে। পরবর্তীতে কৃষকদের জমি ক্রয় করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে অল্প কিছু জমি ক্রয় করে কৃষকদের ভয় ভীতি দেখিয়ে বালু ভরাট করছে।

কৃষক শামসুল ইসলাম জানান, এ কোম্পানির কড়াল গ্রামে আমরা নিঃস্ব হয়ে পড়ছি। জমি দখল করে বালু ভরাট করায় জমি অনাবাদি হয়ে পড়ায় আমাদের সংসার চালাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। আমরা কোম্পানির দালালদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছি। স্থানীয় প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

জামপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হামীম শিকদার শিপলু বলেন, কৃষি জমিতে বালু ভরাটের বিষয়ে  কেউ আমার কাছে অভিযোগ নিয়ে আসেনি। অভিযোগ পেলে কোম্পানির বিরুদ্ধে প্রশাসনের সহযোগিতায় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এসেপট কোম্পানির পরিচালক আব্দুল মান্নানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান মালিক পক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ করেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার অঞ্জন কুমার সরকার বলেন, কৃষকদের কৃষি জমিতে অবৈধভাবে বালু ভরাটের অভিযোগে স্বারকলিপি গ্রহন করা হয়েছে। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

6